রুট-এম্বুলদেনিয়ার লড়াইয়ের দিনে পিছিয়ে ইংল্যান্ড

অধিনায়ক জো রুটের সেঞ্চুরির পরও গল টেস্টে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পিছিয়ে সফরকারী ইংল্যান্ড। তৃতীয় দিন শেষে ১ উইকেট হাতে রেখে তারা ৪২ রানে পিছিয়ে আছে। প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কার করা ৩৮১ রানের জবাবে তৃতীয় দিন শেষে ৯ উইকেটে ৩৩৯ রান করেছে ইংল্যান্ড। অতিথিদের লিড নিতে দেননি শ্রীলঙ্কার বাঁ-হাতি স্পিনার লাসিথ এম্বুলদেনিয়া। ১৩২ রানে ৭ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

সেঞ্চুরির স্বাদ নিলেও আক্ষেপ নিয়ে মাঠ ছাড়েন জো রুট। কারণে ১৮৬ রানে আউট হয়ে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে তিনি ডাবল-সেঞ্চুরি হাতছাড়া করেন। দ্বিতীয় দিন শেষে ২ উইকেটে ৯৮ রান করেছিল ইংল্যান্ড। রুট ৬৭ ও জনি বেয়ারস্টো ২৪ রানে অপরাজিত ছিলেন। তৃতীয় দিনের ৩৫তম বলেই ইংল্যান্ড শিবিয়ে আঘাত হানেন এম্বুলদেনিয়া। মাত্র ৪ রান যোগ করে ফিরেন ৭৩ বলে ৫ চারে ২৮ রান করা বেয়ারস্টো।

উইকেটে গিয়ে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি ড্যান লরেন্স। এম্বুলদেনিয়ার চতুর্থ শিকার হয়ে ৩ রানে থামেন তিনি। এতে ১৩২ রানে চতুর্থ উইকেট হারায় ইংল্যান্ড। এরপর জশ বাটলারকে নিয়ে ১৭৯ বলে ৯৭ রানের জুটি গড়ে ইংল্যান্ডকে ভালো অবস্থায় নিয়ে যান রুট। এই জুটির মাঝেই ৯৯তম টেস্টে ১৯তম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। স্যাম কারানকে নিয়ে ২৩ ও ডম বেসকে নিয়ে ৮১ রান যোগ করে ইংল্যান্ডের স্কোর ৩শ অতিক্রম করান রুট। বাটলার ৯৫ বলে ৭টি চারে ৫৫, কারান ১৩ ও বেস ৩২ রান করে ফিরেন।

কারানকে শিকার করে টেস্টে তৃতীয়বারের পাঁচ বা ততোধিক উইকেট শিকার করেন এম্বুলদেনিয়া। সেঞ্চুরি ও দেড়শ রানের পর ডাবল-সেঞ্চুরির দিকেই এগোচ্ছিলেন রুট। কিন্তু ব্যক্তিগত ১৮৬ রানে তিনি রান আউটের ফাঁদে পড়েন। দলীয় ৩৩৯ রানে নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন রুট। তার ৩০৯টি বলের ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৮টি বাউন্ডারিতে। দিন শেষে জ্যাক লিচ শূন্য হাতে অপরাজিত আছেন। শ্রীলঙ্কার এম্বুলদেনিয়া ১৩২ রানে ৭ উইকেট নেন। এটিই তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং।