মোদির বারাণসী-যোগীর রাজ্য ও অযোধ্যায় শোচনীয় পরাজয় বিজেপির

পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনে গেরুয়া শিবিরের অনেক আশা ছিল এবার ক্ষমতায় আসবে বিজেপি। শুধু বিজেপির কেন্দ্রীয় ও রাজ্য নেতারাই নয়, গোটা সঙ্ঘ পরিবার অনেকটাই নিশ্চিত ছিল জয় নিয়ে। তবে ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা, চেষ্টার পরও পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতা দখল করতে পারেনি কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপি। আসামে জিতলেও কেরালায় একটি বিধানসভার আসনও পায়নি মোদির দল।

এদিকে, উত্তরপ্রদেশের পঞ্চায়েত ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নির্বাচনকেন্দ্র বারাণসীতে ভরাডুবি হলো বিজেপির। পাশাপাশি, ‘রাম জন্মভূমি’ অযোধ্যা এবং ‘কৃষ্ণের এলাকা’ মথুরাতেও পরাজিত পদ্ম শিবির। সামগ্রিকভাবেও যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যে বিরোধীরা বিজেপির তুলনায় অনেক বেশি আসনে জিতেছে।

বারাণসী জেলা পঞ্চায়েতের (জেলা পরিষদ) ৪০টি আসনের মধ্যে বিজেপি জিতেছে মাত্র ৮টিতে। এনডিএ জোটের শরিক আপনা দল (এস) পেয়েছে ৩টি। রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল সমাজবাদী পার্টি পেয়েছে ১৫টি, বিএসপি ৫ এবং আম আদমি পার্টি, সুহেলদেব ভারতীয় সমাজ পার্টি ১টি করে আসনে জিতেছে। কয়েকটি আসন গিয়েছে নির্দলদের দখলে।

অযোধ্যা জেলা পঞ্চায়েতের ৪০টি আসনের মধ্যে ২৪টি জিতেছে অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টি। বিজেপির ঝুলিতে মাত্র ৬। বিএসপি ৫ এবং নির্দল ও অন্যেরা ৫টি আসনে জিতেছে। মথুরা জেলা পঞ্চায়েতে বিএসপি ১২ এবং অজিত সিংহের রাষ্ট্রীয় লোকদল ৯টি আসনে জিতেছে। বিজেপি জিতেছে মাত্র ৩টিতে।

রবিবার থেকে উত্তরপ্রদেশের ৭৫টি জেলায় ত্রিস্তর পঞ্চায়েত ভোটের গণনা শুরু হয়েছে। জেলা পঞ্চায়েতের ৩ হাজার ৫০টি আসনের মধ্যে এখনও পর্যন্ত ৯১৮টিতে বিজেপি জিতেছে বলে দলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।