ভারতকে অনুশীলন ক্যাম্প করতে দিচ্ছে কাতার, দিচ্ছে না বাংলাদেশকে

ভেস্তে গেল ‘কাতার ক্যাম্প’। আগের মতো অনুশীলনের সুবিধা এবার দিচ্ছে না কাতার। তাই বাংলাদেশ দলের কাতার ফুটবল বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পুরো প্রস্তুতিই হবে ঢাকায়।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের পরিকল্পনা ছিল কাতারে গিয়ে ৭ থেকে ১০ দিন ফুটবল ক্যাম্প করার। এই সুযোগটা গত ডিসেম্বরেও পেয়েছিল বাংলাদেশ দল। সেবার অবশ্য ভিন্ন প্রেক্ষাপট ছিল।

করোনার সময় বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ হওয়ারই কথা ছিল না, বিস্তর অনুরোধ করেই বাংলাদেশকে ৪ ডিসেম্বর ম্যাচ খেলতে রাজি করিয়েছিল কাতার। খেলোয়াড়দের ফিটনেসের অভাবের কারণে কোচ জেমি ডে আপত্তি করলেও তা এড়িয়ে গিয়েছিল বাফুফে। বিনিময়ে সুবিধা হিসেবে দুই সপ্তাহ আগে গিয়ে জামাল ভুঁইয়ারা লম্বা ক্যাম্প করেছিল দোহায়। ম্যাচটি যদিও ৫-০ গোলে হেরেছিল। এবার এএফসি নির্ধারিত সূচিতেই খেলতে যাবে। তাই কাতার এফএ আগের মতো আন্তরিক নয় এবং অনুশীলন ক্যাম্প করার সুযোগ দিতে অপারগতা প্রকাশ করেছে। বাফুফে চেয়েছিল ২১ কিংবা ২২ মে’র দিকে দলকে দোহায় পাঠিয়ে চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিতে।

সেই আশায় জল ঢেলে দেওয়ার পর বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনও হতাশার সঙ্গে বলেছেন, ‘ওখানে (কাতার) গিয়ে আমরা অনেক সুযোগ-সুবিধা পাব না। জিম-সুইমিংসহ অন্য কিছু না পেলে গিয়ে লাভ কী? এ ছাড়া আমাদের ফুটবলাররা তো এখানেই সব পাচ্ছে।’

গতকাল একই সুরে কথা বলেছেন জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদও, ‘এখানেই প্রস্তুতি ভালো হচ্ছে। স্থানীয় দুটি দলের সঙ্গে আলাপ করে এখানে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচের ব্যবস্থা করা হবে। এরপর ৩০ মে বাংলাদেশ দল কাতার যাবে, সে ক্ষেত্রে এক দিনের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।’

বাংলাদেশকে সুযোগ-সুবিধা না দিলেও ভারতকে ঠিকই দোহায় লম্বা অনুশীলন ক্যাম্পের ব্যবস্থা করে দিচ্ছে কাতার। ১৫ মে থেকে কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারতীয় দল গতকাল পৌঁছে গেছে কাতার। বাংলাদেশ যাবে আগামী ৩০ মে। তবে এর মধ্যে দু-একজনের কভিড পজিটিভ হলেই বিপাকে পড়বে দল। তখন আর বিকল্প খেলোয়াড় নেওয়ারও সুযোগ থাকবে না।