বঙ্গবন্ধুর আত্নশুদ্ধি নির্দেশ ও প্রধানমন্ত্রীর জায়নামাজ খোঁজা

গত ০৯।০৯।২০২০ বুধবার একাদশ জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনের মুলতবি অধিবেশন।প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্ব। জাতীয় সংসদ সদস্য ফকরুল ইমাম সাহেব এক সম্পূরক প্রশ্নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার  নিকট জানতে চেয়েছেন, “সকালে ঘুম থেকে উঠার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কি খোঁজেন?” প্রশ্নোত্তরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ভোরে ঘুম থেকে উঠেই আমি প্রথমে জায়নামাজ খুঁজি…”।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, সংসদীয় গণতন্ত্র পদ্ধতিতে পরিচালিত হয়। সংসদীয় গণতন্ত্রের মূলমন্ত্র ‘জনগণের নিকট জবাবদিহিতা’। সেই কারণেই সরকারের মন্ত্রীপরিষদ জাতীয় সংসদে জনগণের ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের নিকট জবাবদিহি করে থাকেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনগণকে অধিকতর ক্ষমতাবান করা এবং সরকারের অধিকতর জবাবদিহিতার জন্য সংসদনেতা ও সরকার প্রধান অর্থ্যাৎ প্রধানমন্ত্রীকে জবাবদিহিতার আওতাভুক্ত করতে জাতীয় সংসদে ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্ব’ ব্যবস্থার প্রবর্তন করেন। সেই ব্যবস্থানুযায়ী ৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, বুধবার সকালে মাননীয় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে একাদশ জাতীয় সংসদের নবম অধিবেশনের মুলতবি অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্বে সংসদ সদস্য ফকরুল ইমাম সাহেব বঙ্গবন্ধুর একটি ভাষণের উদ্ধৃতি দিয়ে সম্পূরক প্রশ্ন করেছিলেন।

তিনি একটি সম্পূরক প্রশ্নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে একটি ব্যক্তিগত প্রশ্ন করেন। তিনি বলেন, “সকালে ঘুম থেকে উঠার পর আমরা অনেক কিছুই দেখি অনেক কিছুই জানি, ঘুম থেকে উঠার পর শিশুরা মা খুঁজে, যুবকরা বৌ খুঁজে, আমিও মোবাইল খুঁজি, তা দেখে আমার মা ঝাড়ু ঝাড়েন, ঝাড়ু খোঁজেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কি খোঁজেন?” প্রশ্নের উত্তরে সংসদনেতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন (হাসি মুখে), “সকালে উঠে আমি জায়নামাজ খুঁজি। সকালে উঠেই আগে নামাজ পড়ি। নামাজ পড়ার পর কোরআন তেলাওয়াত করি। তারপরে এক কাপ চা নিজে বানাই। আমার চা’টা, আমার সকালের চা’টা আমি নিজে বানাইয়া খাই। চা বানাই  কফি বানাই, যা বানাই নিজে বানাই। আমার ছোট বোন থাকলে, ছোটবোন আর আমি আমরা দুজন, যে আগে উঠে সেই বানায়। এখন পুতুল আছে, আমার মেয়ে আছে, যে ঘুম থেকে আগে উঠে সে বানায়। আমরা নিজেরা করে খাই। তার আগে বিছানা থেকে নামার সাথে সাথেই নিজের বিছানাটা গুছিয়ে রাখি নিজের হাতে। এরপর বই-টই যা পড়ার পড়ি। আর ইদানিং করোনা ভাইরাসের পরে সকালে আমি একটু হাঁটতে বের হই। (হেসে হেসে বলেন) তবে আরেকটা কাজ করি এখন, সেটা আবার বললে কি হবে (হাসতে থাকেন…)। গণভবনে একটা লেক আছে মাননীয় স্পিকার। যখন হাঁটতে যাই, হেটে হেটে যখন লেকের পাড়ে বসি, তখন একটা ছিপ নিয়ে বসি, মাছও ধরি, ধন্যবাদ মাননীয় স্পিকার।”

আমি দীর্ঘ সাত বছর মাননীয় নেত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত স্টাফ হিসাবে কর্মরত ছিলাম। তাঁকে খুব কাছ থেকে দেখার ও তাঁর সম্পর্কে জানার সৌভাগ্য আমার হয়েছে। এছাড়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী ওয়াজেদ মিয়ার (সুধা মিয়ার) নামে নামকরন করা নিজ বাসভবন সুধাসদনে কর্মরত প্রতিজন ব্যক্তিগত স্টাফের সাথে সুসম্পর্ক থাকায় মাননীয় নেত্রীর দিনের শুরু সম্পর্কে যতটুকু জেনেছি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিয়মিত ‘সুবেহসাদেক’ এর পূর্বেই ঘুম থেকে উঠে ‘তাহাজ্জত নামাজ’ আদায় করেন। এরপর ফজর নামাজ আদায় করে তিনি নিয়মিত পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন। তবে তাঁর তেলওয়াতের বিশেষত্ব হলো, তিনি পবিত্র কোরআনের প্রতিটি আয়াত বাংলা অর্থসহ তেলাওয়াত করেন।
সুধাসদনে অবস্থানকালে, একদিন তিনি দুইখানা কোরআন শরীফ ও একটি ‘রেহাল’ কিনে আনার জন্য আমাকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু পরক্ষণেই আমাকে ডেকে বললেন বঙ্গানুবাদসহ কোরআন শরীফ ক্রয় করার জন্য। এসময় তিনি আমাকে অতিস্নেহের সাথে জিজ্ঞাসা করলেন, ”কোরআন তেলাওয়াত করো?” উত্তরে জানালাম, “জ্বি, নিয়মিত পড়ি”। তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বললেন, “পবিত্র কোরআন অর্থসহ তেলাওয়াত করলে, মহান আল্লাহর নির্দেশাবলী বুঝা যায়, আমল করা সহজতর হয়। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করা ও তা বুঝে আমল করা, উভয়েই জরুরী। তাই আমল করতে হলে অনুবাদসহ কোরআন তেলাওয়াত করতে হবে, অর্থ বুঝতে হবে”।

কোরআন তেলাওয়াত শেষে সূর্য উদয়ের খানিকক্ষণ পর তিনি এশরাকের নামাজ আদায় করেন। সুধাসদনে অবস্থানকালে দেখেছি তিনি এশরাক নামাজান্তে তাঁর পছন্দের এলশেসিয়ান কুকুরগুলোর কাছে গিয়ে ডাকতেন। বেষ্টনীর মধ্যে অবস্থানরত ছোটবড় ছয়টি কুকুরই দৌড়ে দ্রুত তার কাছে চলে আসতো ‘আদর’ নেওয়ার জন্য। মাননীয় নেত্রী সেগুলোর মাথায় হাত বুলিয়ে আদর করতেন এবং দায়িত্বে থাকা মানিককে ডেকে এনে সার্বিক খোঁজ খবর নিতেন। উল্লেখ্য, সুধাসদনের এই পোষা প্রাণীগুলো ওদের ‘মনিব’এর নিরাপত্তার দ্বায়িত্ব যথাযথভাবেই পালন করতো।

মাননীয় নেত্রী মাঝেমধ্যে সুধাসদনে কর্মরত তাঁর ব্যক্তিগত স্টাফদের অফিসসমূহ পরিদর্শন করতেন। অফিস স্টাফদের পারিবারিক, আর্থিকসহ সার্বিক খোঁজ নিতেন। সুধাসদনে আগত দর্শনার্থীদের আতিথেয়তার ব্যবস্থাপনার খোঁজ নিতেন। আমরা ব্যক্তিগত ও অফিস স্টাফগণ সকাল ৮টায় নিয়মিত সুধাসদনে দৈনিক কর্মকান্ড শুরু করতাম। ফলে প্রায়ই মাননীয় নেত্রীর দিনের শুরুতে বিভিন্ন কাজে আমরাও অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেতাম।
জনাব ফকরুল ইমাম অপর সম্পূরক প্রশ্নে, ২৬ মার্চ ১৯৭৫, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত সমাবেশে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান প্রদত্ত ভাষণের অংশবিশেষ উদ্ধৃত করে বলেন, জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি ডায়ালগ উদ্ধৃত করতে চাই, “আপনি চাকুরী করেন আপনার মায়না (বেতন) দেয় এই গরীব কৃষক, আপনার মায়না দেয় এই গরীব শ্রমিক, আপনার সংসার চলে এই টাকায়, আমরা গাড়ি চড়ি ঐ টাকায়, ওদের সম্মান করে কথা বলেন, ওদের ইজ্জত করে কথা বলেন, ওরাই মালিক। আমরা সবাই জানি এই কথাটা কার। আমার প্রশ্ন হলো এই (বর্তমান) সরকার এই কথাগুলোর উপর ভরসা করে কিনা’?

সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, যে উদ্ধৃতিটি তিনি দিয়েছেন, এই উদ্ধৃতিটি জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া এবং তিনি তা বিশ্বাস করতেন, আর তার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে আমরাও তাই সেটাই বিশ্বাস করি। যে কারণে আমরা ছোটবেলা থেকে সেভাবেই শিক্ষা নিয়েছি। আমার বাবার নির্দেশ ছিল, রিক্সাওয়ালাকে আপনি করে কথা বলতে হবে, বাড়ির ড্রাইভারকে ড্রাইভার সাহেব বলতে হবে, আর কাজের যারা লোকজন তাদের কখনও চাকর-বাকর বলা যাবে না, হুকুম দেওয়া যাবে না, (কোন কিছুর প্রয়োজন হলে) তাদের কাছে সম্মান করে ভদ্রভাবে চাইতে হবে। যে কারণে, প্রধানমন্ত্রী হতে পারি কিন্তু এখনও বাড়িতে যে ছোট কাজের মেয়ে আছে তাদের কাছে কখনও যদি এক গ্লাস পানিও চেতে (চাইতে) হয়, যতদুর পারি নিজে করে খাই, যদি চেতে (চাইতে) হয় তাহলে কিন্তু তাদেরকে জিজ্ঞাসা করি, আমাকে ‘এটা’ একটু করে দিতে পারবে? এই শিক্ষাটা আমরা নিয়ে আসছি, এটা আমরা এখনও মেনে চলি, এটা আমার বাবারই শিক্ষা। শুধু তিনি বলে গেছেন তা না, সে শিক্ষা আমাদের দিয়েও গেছেন। কাজেই সেই দিকে মনে করি আমাদের সকলেরই, মানুষ গরীব দেখলে বা ভালো পোশাক না থাকলে তাদের অবহেলা করতে হবে, আমাদের কাছে কিন্তু সেটা না, আমাদের কাছে সকলেই সমান সমাদর পায়। বরং যাদের কিছু নাই, তাদের দিকে বেশী নজর দেই, দৃষ্টি দেই’।

এখানে পাঠকের বোঝার সুবিধার্থে ২৬ মার্চ ১৯৭৫ সালের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত সমাবেশে জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে ভাষণ দিয়েছেণ তাঁর ভাষণের কিয়দংশ এখানে উল্লেখ করা হল। তিনি বলেছিলেন, “… শিক্ষিত সমাজকে একটা কথা বলব। আপনাদের আমাদের চরিত্রের পরিবর্তন হয় নাই। একজন কৃষক যখন আসে খালি গায়ে,  লুঙ্গি পড়ে,  আমরা বলব, “এই বেটা, কোথেকে আইছিস, বাইরে বয়, বাইরে বয়।” একজন শ্রমিক যদি আসে বলি “ঐখানে দাঁড়া।” “এই রিক্সাওয়ালা,  এভাবে চলিস না।” তাচ্ছিল্যের সঙ্গে তাদের সাথে কথা বলেন। তুচ্ছ করেন। এর পরিবর্তন করতে হবে। আপনি চাকরি করেন,  আপনার মাইনে দেয় ওই গরিব কৃষক। আপনার মাইনে দেয় ওই গরিব শ্রমিক। আপনার সংসার চলে ওই টাকায়। আমরা গাড়ি চড়ি ওই টাকায়। ওদের সম্মান করে কথা বলুন, ওদের ইজ্জত করে কথা বলেন। ওরাই মালিক। ওদের দ্বারাই সংসারই চলে।

সরকারি কর্মচারীদের বলবো,  মনে রেখ,  এটা স্বাধীন দেশ। এটা ব্রিটিশের কলোনি নয়। পাকিস্তানের কলোনি নয়। যে লোককে দেখবা তার চেহারাটা তোমার বাবার মতো,  তোমার ভাইয়র মতো। ওর পরিশ্রমের পয়সায় তোমরা মাইনে পাও। ওরাই  সম্মান বেশি পাবে। কারণ,  ওরা নিজেরা কামাই করে খায়। একটা কথা আমি জিজ্ঞাসা করি, কিছু মনে করবেন না। আমাদের কাছে জিজ্ঞাসা করি আমাদের লেখাপড়া শিখিয়ছে কে? আমার বাপ-মা, আমরা বলি,  বাপ-মা। আমাদের লেখাপড়া শিখাইছে কে? ডাক্তারি পাশ করায় কে? ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করায় কে? সায়েন্স পাশ করায় কে? বৈজ্ঞানিক করে কে? অফিসার করে কে? কার টাকায়। বাংলার দুঃখী জনগণের টাকায়।

আপনাদের কাছে আমার জিজ্ঞাসা, শিক্ষিত ভাইরা,  আপনার লেখাপড়ার যে খরচ জনগণ দিয়েছে, তা  শুধু আপনার সংসার দেখবার জন্য নয়। আপনার ছেলে মেয়েদের দেখবার জন্য নয়। দিয়েছে এ জন্য যে, তাদের জন্য আপনারা কাজ করবেন, তাদের সেবা করবেন। তাদের আপনারা কী দিয়েছেন? কী ফেরত দিয়েছেন,  কতটুকু দিচ্ছেন?  তার টাকায় ইঞ্জিনিয়ার সাব,  তার টাকায় ডাক্তার সাব,  তার টাকায় অফিসার সাব,  তার টাকায় রাজনীতিবিদ সাব, তার টাকায় মেম্বার সাব, তার টাকায় সব সাব। সমাজ যেন ঘুণে ধরে গেছে। এ সমাজকে আমি চরম আঘাত করতে চাই। এ আঘাত করতে চাই যে আঘাত করেছিলাম পাকিস্তানিদের, সে আঘাত করতে চাই এই ঘুণে ধরা সমাজ ব্যবস্থাকে।…

আপনারা দিচ্ছেন কী ? কী ফেরত দিচ্ছেন? আত্নসমালোচনা করুন। বক্তৃতা করে লাভ নাই। রাতের অন্ধকারে খবরের কাগজের কাগজ ব্ল্যাক মার্কেটিং করে সকাল বেলা বড় বড় কথা বলার দাম নাই। রাতের বেলা ঔষধ ব্ল্যাক মার্কেটিং করে সকাল বেলা বড় বড় কথা বলার দাম নাই। হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে মদ খেয়ে অনেস্টির কথা বলার দাম নাই। আত্নসমালোচনা করুন। আত্নশুদ্ধি করুন। তা হলেই হবেন মানুষ।’

মহামারী করোনার এ সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার  দৈনন্দিন জীবনাচার ও জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেওয়া ভাষণের কথাগুলো যদি আমরা ব্যক্তিগত জীবন এবং রাষ্টীয় কাজে অনুশীলন করি তাহলে জাতির অনেক কল্যাণ হবে বলে আমার বিশ্বাস।

-ড. মো. আওলাদ হোসেন