ধসে পড়ছে সেজান জুসের পোড়া কারখানা ভবন, ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাশেম ফুডস অ্যান্ড বেভারেজ কম্পানির সেজান জুসের পুড়ে যাওয়া কারখানা ভবনটি ধসে পড়তে শুরু করেছে। ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে ফায়ার সার্ভিস।

আজ শনিবার (৯ জুলাই) সকাল থেকে কারখানায় উদ্ধার অভিযান চালায় ফায়ার সার্ভিস। একপর্যায়ে দুপুরে ছাদের একাংশ ধসে পড়তে শুরু করে। এসময় ভবনটিকে বিপদজনক বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। তাঁরা  জানান, সকাল থেকে ভবনে উদ্ধার কাজ চলার একপর্যায়ে দুপুর থেকে একপাশে ভেঙে পড়তে শুরু করে। যেকোনো  সময় বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের নারায়ণগঞ্জ জেলার উপ পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফীন জানান, ভবনটিকে এখন বিপদজনক হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হচ্ছে। আগুনে ভবনের অনেক ক্ষতি হয়েছে, এটি যেকোনো সময় ধসে পড়তেও পারে।

গত বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতার কর্ণগোপ এলাকায় সজীব গ্রুপের মালিকানাধীন হাসেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজের ছয়তলা কারখানা ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। গতকাল শুক্রবারও আগুন বিষাদমাখা পরিবেশ আর বিভীষিকাময় পরিস্থিতি তৈরি করে।

গতকাল সন্ধ্যার ৭টার দিকে যখন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ততক্ষণে কেটে যায় ২৬ ঘণ্টা। তখনো পাঁচ ও ছয়তলায় তল্লাশি চালানো বাকি ছিল। আগুন লাগার পরপর ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে প্রাণ হারান তিন শ্রমিক। সব মিলে এ পর্যন্ত প্রাণহানি ঘটেছে ৫৩ জনের।

কারখানাটির ছয় হাজার কর্মীর মধ্যে বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রায় ৪০০ শ্রমিক ওভারটাইম (অতিরিক্ত সময়) কাজ করছিলেন বলে দাবি করেছে কর্তৃপক্ষ। তবে শ্রমিকদের দাবি, সহস্রাধিক শ্রমিক কাজ করছিলেন। আগুন লাগার পর সেখানে আটকা পড়ে শতাধিক। নিরাপদে বের হওয়ার আকুতি জানাতে একদল শ্রমিক চার তলায় কর্মকর্তাদের কাছে যান। সেখানে আটকা পড়েই ওই শ্রমিকদের মৃত্যু হয়েছে।