ডেঙ্গুর ১৭ হটস্পটে ওষুধ ছিটানোর নির্দেশ স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর

ঢাকার ১৭ স্থানকে ডেঙ্গুর হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করে ওষুধ ছিটানোর জন্য দুই সিটি কর্পোরেশনের মেয়রকে নির্দেশ দিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

আজ রবিবার সচিবালয়ে ডেঙ্গুসংক্রান্ত এক জরুরি বৈঠকে তিনি এ নির্দেশ দেন।

বৈঠকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম, ঢাকা দক্ষিণের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম, স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

রামপুরা, মহাখালী, মগবাজার, সিদ্ধেশ্বরী, শান্তিনগর, ক্যান্টনমেন্ট, সেগুনবাগিচা, কাকরাইল, পল্টন, খিলগাঁও, মিরপুর, মুগদা, বাসাবো, সবুজবাগ, বাড্ডা ও মোহাম্মদপুরসহ ১৭ স্থানকে ডেঙ্গুর হটস্পট চিহ্নিত করে দুই মেয়রকে উদ্দেশ্য করে মন্ত্রী বলেন, সোমবার থেকে তাৎক্ষণিক মশক নিধনের ওষুধ দেবেন।

বৈঠকে ডেঙ্গু মোকাবিলায় সিটি করপোরেশন একটি পরিকল্পনা তৈরি করবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সেটা কিভাবে বাস্তবায়ন করবে, সে ব্যাপারে সিটি করপোরেশন থেকে মন্ত্রণালয়ে তথ্য দেবে।

মন্ত্রী বলেন, এবারও একটি সেল গঠন করে দেওয়া হলো। মশক নিধনের ব্যাপারে সিটি করপোরেশনকে সার্বিক তদারকির জন্য এ সেল গঠন করা হয়েছে।

সিটি করপোরেশনের লোকবল সংকট নিরসনে তাজুল ইসলাম বলেন, আপনারা বলুন, আমরা সেটি দেখবো। যদি আউটসোর্সিং করতে হয়, দরকার হলে সেটা ব্যবস্থা করা যায়।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আনতে সিটি করপোরেশনের যদি অর্থ প্রয়োজন হয়, তা মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ দেওয়া হবে বলেও ঘোষণা দেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী।

তিনি বলেন, মশক নিধনের ওষুধের মজুদ আছে। এবার কোয়ালিটি নিয়ে কোনো কথা আসেনি।

হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গু রোগীদের নাম-পরিচয় সরবরাহ করার জন্য বৈঠকে উপস্থিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিকে নির্দেশ দিয়ে মন্ত্রী তাদের বাসা বা আশপাশে ওষুধ ছিটানোর জন্য সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।