জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা না থাকায় যা খুশি তা-ই করছে সরকার’

‘জনগণের প্রতি শ্রদ্ধা ও দায়বদ্ধতা না থাকায় সরকার যখন যা খুশি তা-ই করছে। সরকারের মন্ত্রীরা বড় বড় কথা বলছেন, কিন্তু তাঁরা কাজের কাজ কিছুই করছেন না।’

আজ বুধবার (১১ আগস্ট) দুপুরে ঢাকার কেরানীগঞ্জে করোনা হেল্প সেন্টার উদ্বোধনকালে এসব অভিযোগ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রিজভী বলেন, ‘সরকারের মন্ত্রীরা বলছেন একে একে সব খুলে দিচ্ছি। শিল্প-কলকারখানা, গণপরিবহন, মার্কেটসহ সব খুলে দিচ্ছেন। কিন্তু স্কুল-কলেজগুলো খুলে দেবেন না। আমরা দেখতে পেলাম ইউরোপে স্কুল-কলেজ খুলে দিয়েছে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিয়ে। তাদের জীবন ধ্বংস করেনি। অথচ আমাদের সরকার স্কুল-কলেজ খুলে দিচ্ছে না।’ তিনি বলেন, ‘সরকার লকডাউন তুলে দিয়েছে। যেখানে সরকারি হিসাবে গড়ে প্রতিদিন ২৫০ জনের বেশি লোক মারা যাচ্ছে। গ্রামগঞ্জে যারা মারা যাচ্ছে, তাদের হিসাব নেই। অথচ যখন ৫০ জন মারা যেত তখন লকডাউন দেওয়া হয়েছিল। জনগণের প্রতি শ্রদ্ধা ও দায়বদ্ধতা না থাকায় সরকার যখন যা খুশি তা-ই করছে।’

অনুষ্ঠানে খাদ্যমন্ত্রীর কঠোর সমালোচনা করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘অথর্ব স্বাস্থ্যমন্ত্রীর করোনা সম্পর্কে ন্যূনতম ধারণা নেই। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলছেন আমার করার কিছু নেই। অথচ বিভিন্ন দাতাগোষ্ঠী অক্সিজেন কনটেন্ট দিয়েছে, যা বিমানবন্দরে পড়ে আছে। আজ পথে-ঘাটে, ধানক্ষেতে মরদেহ পড়ে আছে। শুধু চারদিকে মরদেহের গন্ধ আর হাহাকার চলছে। করোনায় আক্রান্ত রোগীরা আধুনিক চিকিৎসা পাচ্ছেন না। কিছু বেসরকারি হাসপাতালে আধুনিক চিকিৎসা থাকলেও সরকারি হাসপাতালগুলোতে নেই। মফস্বলের অবস্থা আরো ভয়াবহ। না আছে ওষুধ, না আছে চিকিৎসা।’

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে সারা দেশে করোনা হেল্প সেন্টার চালুর অংশ হিসেবে কেরানীগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ বিএনপির আয়োজনে এ হেল্প সেন্টার উদ্বোধন করা হয়।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট নিপুন রায় চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রফিকুল ইসলাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, বিএনপি নেতা নাজিম উদ্দিন মাস্টার প্রমুখ।