চীনা বিনিয়োগের উচ্চ ব্যয়ে অবাক পাকিস্তান

পাকিস্তানের ইচ্ছায় চীনের কৌশলগত সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার বাসনাতে ৬২ মিলিয়ন ডলার খরচের China-Pakistan Economic Corridor (CPEC) এ একটি অস্বচ্ছতার প্রমান বেরিয়ে এসেছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দ্বারা গঠিত একটি কমিটি পাকিস্তানে চীনা বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদনকারীদের দুর্নীতি সাথে জরিত একটি প্রতিবেদন উত্থাপন করেছে যেখানে দেখা গেছে বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র গুলো উচ্চদরে বিদ্যুৎ সরবরাহ করছে।

প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয়েছে যে Huaneng Shandong Ruyi (Pak) Energy (HSR) বা সহিওয়াল এবং Port Qasim Electric Power Company Limited (PQEPCL), China-Pakistan Economic Corridor (CPEC) কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে তাদের সেট আপ ব্যয় বাড়িয়েছে।

পাকিস্তানের নাগরিকগণ, যাদের কাছে বিশ্বের সবচেয়ে নির্ভর যোগ্য বন্ধু চায়না কে বলা হয়েছিলো সেখানে  আজ চায়নার নির্দয় ভাবে অযৌক্তিক ব্যবসায়ের কথা তাদের অবাক করে দিয়েছে।

একের পর এক বেসামরিক সরকার এবং পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী ভারতের বিরুদ্ধে তাদের প্রধান সমর্থনকারী হিসাবে চীনকে দেখিয়েছিল।

চীনের সামঞ্জস্যপূর্ণ কৌশলগত সমর্থন, পাকিস্তানের পারমাণবিক কর্মসূচির সাথে সহায়তায় পাকিস্তানের সামরিক স্থাপনা থেকে অনেক সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে আরো শর্তসাপেক্ষ পাকিস্তানি জোটের আধারে অনুষ্ঠিত হয় ।

কিন্তু এখন মনে হচ্ছে চীন তার জনগণকে সাহায্য করতে পাকিস্তানে নেই বরং একজন প্রিপারেটরি ইকোনমিক অ্যাক্টর হিসেবে আছে ।

“Committee for Power Sector Audit, Circular Debt Reservation, and Future RoadMap” এই কমিটি দ্বারা ২৭৮ পেজ এর রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে নিজস্ব বিদ্যুৎ সেক্টরে চাইনিজ কোম্পানি দ্বারা পরিচালিত ১০০ বিলিয়ন পাকিস্তানি রুপি (৬২৫ মিলিয়ন ডলার) দুর্নীতির সন্ধান আছে, যার অন্তত এক তৃতীয়াংশ চীনা প্রকল্পের সাথে সম্পর্কিত।

China-Pakistan Economic Corridor (CPEC) এবং পাকিস্তান সামরিক শক্তির মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে এবং তার জন্য পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর লে. জেনারেল অসিম সালিম বাজওয়াকে China-Pakistan Economic Corridor (CPEC) এর সভাপতি বানানো হয়েছিল।

কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘Interest During Construction’ (IDC) সম্পর্কিত স্পনসরদের ভুল উপস্থাপনা এবং পাশাপাশি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের  এর কাজ সমাপ্তির বিষয়ে তৎক্ষণাৎ বিবেচনা না করার কারণে কয়লাভিত্তিক দুটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অতিরিক্ত সেট আপ ব্যয়ের জন্য ৩২.৪৬ বিলিয়ন পাকিস্তানি রুপির (আনুমানিক ২০৪ মিলিয়ন ডলার) অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

৪৮ মাসের জন্য এই সুদের ছার প্রদান করা হয় এবং এই সমস্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র আসলে প্রায় ২৭-২৯ মাসের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়, যা সাহিওয়াল বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের ক্ষেত্রে ৩০ বছরে চিরকালের জন্য বার্ষিক ২৭.৪ মিলিয়ন ডলারের এর ইকুইটি (রো)-এর একটি বাড়তি রিটার্ন এনটাইটেলমেন্ট করে ।

ডলারের তুলনায় বার্ষিক রুপির শতাংশের অবমূল্যায়নকে মাথায় রেখে আনুমানিক অতিরিক্ত পরিশোধের পরিমাণ ২৯১.০৪ বিলিয়ন রুপি (প্রায় ১.৮ বিলিয়ন ডলার) হয়ে দাঁড়িয়েছে।

Huaneng Shandong Ruyi (HSC) দাবি করে ‘Interest During Construction’ (IDC) একটি দীর্ঘমেয়াদী ঋণের উপর ভিত্তি করে (লিবর +৪.৫ শতাংশ) হারে নির্মাণ কালের হিসাব করা হয়েছে, যদিও পাকিস্তান সরকার দীর্ঘমেয়াদি কোন ঋণ নেয় নি।

চীনা সংস্থাগুলির তাদের  লাভের বিশালতা ছিল ধারণাতীত। পাকিস্তানি বিশেষজ্ঞদের কমিটি যে দুটি প্রকল্প পরীক্ষা করেছিল, তাদের লঞ্চের সময় মূল্য ছিল ৩.৮ বিলিয়ন ডলার। কমিটি ৪৮৩.৬৪ বিলিয়ন রুপির অতিরিক্ত খরচ পেয়েছে, যা বর্তমান বিনিময় হারে ৩ বিলিয়ন ডলার।

এর মধ্যে Huaneng Shandong Ruyi (HSC) কে ৩৭৬.৭১ বিলিয়ন রুপি (আনুমানিক ২.৩ বিলিয়ন ডলার) এবং Port Qasim Electric Power Company Limited (PQEPCL) কে ৩০ বছরের বেশি অতিরিক্ত সেট আপ ব্যয়ের কারণে অতিরিক্ত রিটার্ন এবং মিসক্যালকুলেশনের কারণে অতিরিক্ত রিটার্নের পরিমাণে ১০৬.৯৩ বিলিয়ন রুপি (আনুমানিক ৬৭২ মিলিয়ন ডলার) অভ্যন্তরীণ হারের রিটার্নে  Internal rate of return (IRR) অতিরিক্ত পরিশোধ করেছে ।

কমিটি তার প্রতিবেদনে সুপারিশ করেছিল যে Port Qasim Electric Power Company Limited (PQEPCL) এবং Huaneng Shandong Ruyi (HSC)-এর প্রকল্প ব্যয় থেকে ৩২.৪৬ বিলিয়ন রুপি (আনুমানিক ২০৪ মিলিয়ন ডলার) কেটে নেওয়া হবে এবং রিটার্ন পেমেন্ট ফর্মুলাটি প্রকৃত নির্মাণের সময় পুনরায় প্রকাশ করার জন্য সংশোধন করা হবে এবং Port Qasim Electric Power Company Limited (PQEPCL) ও Huaneng Shandong Ruyi (HSC)-এর ট্যারিফ অনুসারে সামঞ্জস্য করা হবে।

বর্তমান সূত্রের অধীনে, পরিচালনার দুই বছরের মধ্যে hypotonic shock response (HSR) ইতিমধ্যে বিনিয়োগকৃত তার মূল ইক্যুইটির ৭১.১৮ শতাংশ পুনরুদ্ধার করেছে, যেখানে Port Qasim Electric Power Company Limited (PQEPCL) পরিচালনার প্রথম বছরে তার মূল ইকুইটির ৩২.৪৬ শতাংশ পুনরুদ্ধার করেছে।

এখানেই লাভের অঙ্ক শেষ এবং তার উপরে কৌশল ছাড়া সংস্থাগুলি তৈরি হতো । ৬২ বিলিয়ন China-Pakistan Economic Corridor (CPEC) প্রকল্পে চীনারা যে আয় করবে তা কল্পনা করে দেখুন। এই সংখ্যাগুলি এত বড় যে সংস্থাগুলির মধ্যে থাকা ব্যক্তিদের এবং তাদের পাকিস্তানি অংশগুলিকে পর্যবেক্ষক বা ম্যালিফায়েন্স হিসাবে মিস করা হয়েছে।

শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপ সরকারের অভিজ্ঞতা থেকে বোঝা যেতে পারে পাকিস্তান সরকার ও তাদের নেতাদের কারনে অতিরিক্ত অর্থ প্রদান করতে হয়েছে।

পাকিস্তানের অর্থনীতি কিছু সময়ের জন্য দেউলিয়া হওয়ার উপক্রমে গিয়ে পৌঁছেছে এবং কোভিড-১৯ মহামারী পরিস্থিতি আরও খারাপ করেছে।

তাদের দেশের নীতি সংস্কার করার পরিবর্তে, পাকিস্তানের নেতারা আবার মহামারির জন্য ঋণ পুনর্গঠন ও ঋণ মউকুফ এর শুবিধা চেয়েছিল, ঠিক যেমনটা তারা আগে সন্ত্রাস দমনে পুরস্কার হিসেবে আন্তর্জাতিক সহায়তা চেয়েছিল ।

তবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আশা করে যে একের পর এক অর্থনৈতিক সঙ্কট থেকে পাকিস্তানকে বারবার মুক্তি দেওয়া অবাস্তব। প্রচুর সামরিক ব্যয়, গভীর দুর্নীতি এবং দায়বদ্ধতার অভাব পাকিস্তানের একটি স্বভাবে পরিণত হয়েছে এবং রাজস্ব এবং ব্যয়ের মধ্যে গভীর প্রসারতা বাড়িয়েছে।

এখন, মনে হচ্ছে, চীনা বিনিয়োগগুলি তাদের কাছে একটি নতুন দায়বদ্ধতায় পরিণত হয়েছে। International Monetary Fund (IMF) পাকিস্তানের কর্মকর্তাদের কর ও বিদ্যুতের শুল্ক বাড়ানোর জন্য চাপ দিচ্ছে, কার্যকরভাবে পাকিস্তানের জনগণকে চীনের হিংস্র আচরণের জন্য বিলটি চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো যেন পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন ব্যক্তিদের তাদের নিজস্ব ও চীনের লুণ্ঠনমূলক আচরণে সাহায্য না করে । পাকিস্তানের জনগণ আরও ভাল কিছু পাওয়ার যোগ্যতা রাখে।

হাডসন ইনস্টিটিউটে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ার পরিচালক হুসেন হাক্কানী  ২০০৮ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ছিলেন।