চলে গেলেন চিত্রনায়ক ওয়াসিম

‘মিষ্টি মেয়ে’ খ্যাত নায়িকা সারাহ বেগম কবরীর মৃত্যুর শোক না কাটতেই না ফেরার দেশে চলে গেলেন ঢাকাই সিনেমার সোনালি দিনের সুপারস্টার চিত্রনায়ক ওয়াসিম। রাজধানীর শাহাবুদ্দিন মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শনিবার (১৭ এপ্রিল) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন নায়ক ওয়াসিম (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক জায়েদ খান। কিছুদিন ধরে  গুরুতর অসুস্থ ছিলেন ওয়াসিম। তিনি বলেন, ৭৪ বছর বয়সী ওয়াসিম কয়েক বছর ধরেই বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। মাসখানেক ধরে তিনি হাঁটাচলাও করতে পারছিলেন না।

হাসপাতালের চিকিৎসক জয়ন্ত নারায়ণ শর্মা আচার্য সংবাদমাধ্যমকে জানান, ১২টা ৪০ মিনিটে জরুরি বিভাগে মেজবাহউদ্দিন আহমেদ ওয়াসিমকে আনা হলে তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

১৯৭২ সালে ঢাকাই সিনেমাতে ওয়াসিমের অভিষেক হয় সহকারী পরিচালক হিসেবে ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’র মাধ্যমে। আর নায়ক হিসেবে তার যাত্রা শুরু হয় মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ সিনেমার মাধ্যমে। দিন যতই যেতে থাকে ওয়াসিমের জনপ্রিয়তা ততই আকাশচুম্বী হয়। এক সময় বাণিজ্যিক ঘরানার সিনেমায় অপরিহার্য নায়ক হয়ে ওঠেছিলেন তিনি।

নায়ক ওয়াসিম অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে- ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’, ‘রাতের পর দিন’, ‘দোস্ত দুশমন’, ‘দি রেইন’, ‘রাজদুলারী’, ‘বাহাদুর, ‘মানসী’, ‘সওদাগর’, ‘নরম গরম’, ‘বেদ্বীন’, ‘ঈমান’, ‘লাল মেম সাহেব’ ইত্যাদি। বর্তমানে সিনেমা থেকে দূরেই ছিলেব তিনি। দীর্ঘদিন ধরে তার নতুন কোনো সিনেমা মুক্তি পায়নি।

১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ চাঁদপুর জেলার মতলব জন্মগ্রহণ করেন এ অভিনেতা।

এদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে রাজধানীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন বাংলা সিনেমার মিষ্টি মেয়ে খ্যাত কবরী।

গত ৫ এপ্রিল করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার পরপরই রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তাকে। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে ৮ এপ্রিল তাকে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ১৩ দিনের মাথায় না ফেরার দেশে চলে যান বাংলা চলচ্চিত্রের এই কিংবদন্তি অভিনেত্রী।