খুলেছে দোকানপাট-শপিং মল, বাড়ছে ভিড়

চলমান লকডাউনের মেয়াদ শেষ হতে এখনো তিন দিন বাকি। তবে তার আগেই আজ রবিবার (২৫ এপ্রিল) দোকানপাট ও শপিং মল খুলেছে। এর মধ্য দিয়ে টানা ১১ দিন বন্ধ থাকার পর আজ চাঞ্চল্য ফিরেছে দেশের দোকান ও শপিং মলগুলোতে।

সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, আসছে ঈদ উপলক্ষে দোকান মালিক এবং কর্মচারীসহ সামগ্রিক অর্থনীতির বিষয়টি মাথায় রেখে আজ রবিবার দোকানপাট খুলে দেওয়া হয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি যাতে কঠোরভাবে মানা হয়, সেদিকে বিশেষ নজর রাখা হবে বলে সূত্র জানায়। যদিও সকাল থেকে শপিং মল, দোকানপাটে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মানার বিষয়টি তেমন লক্ষ করা যায়নি।

সকাল ১০টার দিকে নিউমার্কেট, চাঁদনী চকসহ আশপাশের সব শপিং মল ও দোকানপাট খোলা দেখা গেছে। ভিড়ও বাড়ছে ধীরে ধীরে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকানপাট ও শপিং মলে প্রবেশের জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিও নিয়েছেন মালিক-কর্মচারীরা। শপিং মলের সামনে জীবাণুনাশক টানেল, হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কয়েকজন দোকান মালিক জানান, বিকেল ৫টায় বন্ধ করার নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু রোজার সময় ক্রেতারা বেশি আসে ইফতারের পর। এদিকে গণপরিবহন বন্ধ। কাছের মানুষ যারা, তারাই আসবে। দূরের ক্রেতারা আসতে পারবে না। বাস চলাচল শুরু হলে হয়তো বিক্রি বাড়বে।

পুলিশ জানিয়েছে, শপিং মল ও দোকানে যেতে ক্রেতা-বিক্রেতাদের মুভমেন্ট পাস নিতে হবে। এ বিষয়ে নিউমার্কেট, চাঁদনী চক, গাউছিয়া মার্কেটের দোকানিরা জানান, কাউকে কোনো কিছু দেখাতে হয়নি। পুলিশও কিছু জিজ্ঞাসা করেনি। এ ছাড়া তারা সবাই আশপাশেই থাকেন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি রোধে দ্বিতীয় ধাপের প্রথম চেষ্টায় ৫-১১ এপ্রিল কিছুটা কড়াকড়ির চেষ্টা করলেও কার্যত তাতে সফলতা আসেনি। এরপর ১৪ এপ্রিল থেকে দেশে শিল্পপ্রতিষ্ঠান খোলা রেখে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এর পর ২১ এপ্রিল লকডাউন তুলে না নিয়ে এর মেয়াদ বাড়ানো হয় আরো এক সপ্তাহ। আগামী ২৮ এপ্রিল শেষ হবে চলমান লকডাউন।