খুলনা বিভাগে প্রায় ৫০ লাখ পরিবারকে ত্রাণ দিয়েছে সরকার

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের পক্ষ থেকে খুলনা বিভাগে ৪০ লাখ ৯৩ হাজার বেকার ও দুস্থ পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়েছে।

সরকারিভাবে জানানো হয়েছে, জেলা প্রশাসন ইতোমধ্যে এই বিভাগের ২৪ লাখ ৫৯ হাজার কর্মহীন পরিবারের মধ্যে ১৮ হাজার ২৬১ টন চাল এবং ১৬ লাখ ৩৪ হাজার দুস্থ পরিরারের মধ্যে নয় কোটি ৪৮ লাখ টাকা বিতরণ করেছে।
অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (জেনারেল) হোসেন আলী খন্দকার বাসসকে জানান, সরকার এই বিভাগের বেকার ও অভাবগ্রস্থ মানুষের জন্য ত্রাণ সহায়তা হিসেবে ২৬ হাজার ৭০৭ টন চাল এবং ১২ কোটি ৬৪ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘৪০ লাখেরও বেশি মানুষের মধ্যে ১৮ হাজার ২৬১ টন চাল এবং নয় কোটি ৪৮ লাখ টাকা বিতরণ করার পর এই বিভাগের জেলা প্রশাসনে এখনও আট হাজার ৪৪৫ টন চাল ও তিন কোটি ১৬ লাখ টাকা মজুদ রয়েছে।’
তিনি আরো বলেন, বিভাগের দশ জেলায় চাল, টাকাসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।
খুলনা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আজিজুল হক জোয়ারদার বলেন, খুলনা জেলার বেকার ও দরিদ্র পরিবারের মধ্যে বিশেষ ত্রাণ কর্মসূচির আওতায় চার হাজার ২৪০ টন চাল এবং এক কোটি ৫৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।
তিনি আরো বলেন, ‘আমরা খুলনা সিটি কর্পোরেশনসহ অন্যান্য নয় জেলা এবং দুই পৌরসভার বেকার ও অভাবগ্রস্থ পরিবারের মধ্যে তিন হাজার ৩২৯ টন চাল এবং এক লাখ ২৮ হাজার পরিবারের মধ্যে এক কোটি ৪৭ লাখ টাকা বিতরণ করেছি।’
তিনি আরো বলেন, এখনও আমাদের কাছে ৯১১ টন চাল ও দশ লাখ ৪০ হাজার টাকা মজুদ রয়েছে।’
একইভাবে, বাগেরহাটের দুই লাখ ১৮ হাজার পরিবারের মধ্যে দুই হাজার ৪৪৮ টন চাল ও দুই লাখ ১৮ হাজার পরিবারের মধ্যে এক কোটি চার হাজার টাকা এবং সাতক্ষীরার এক লাখ ৯৩ হাজার পরিবারের মধ্যে এক লাখ ৯৩৭ টন চাল ও এক লাখ ৯৩ হাজার পরিবারের মধ্যে ৯৩ লাখ ৩৪ হাজার টাকা বিতরণ শেষ করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসন যশোরের দুই লাখ ৭৭ হাজার পরিবারের মধ্যে দুই হাজার ৭৭৩ টন চাল ও দুই লাখ ৭৭ হাজার পরিবারের মধ্যে এক কোটি ৮৬ হাজার টাকা, নড়াইলের এক লাখ ৪৩ হাজার পরিবারের মধ্যে এক লাখ ৭২৭ টন চাল ও ৩৫ হাজার পরিবারের মধ্যে ৭০ লাখ ২৭ হাজার টাকা এবং মাগুরা জেলার ৬৪ হাজার ৫০ পরিবারের মধ্যে ৬৫৫ টন চাল ও ৫৬ হাজার ৮০ পরিবারের মধ্যে ৩১ লাখ ৯২ হাজার টাকা বিতরণ করেছে।
এছাড়া, ঝিনাইদহে এক লাখ ৪৮ হাজার দরিদ্র পরিবারের মধ্যে এক হাজার ৭০২ টন চাল ও ৭০ হাজার ৯৩১ পরিবারের মধ্যে ৭৬ লাখ এক হাজার টাকা এবং কুষ্টিয়ার এক লাখ ৩৭ হাজার পরিবারের মধ্যে এক লাখ ৩২৩ টন চাল ও এক লাখ ৩৭ হাজার পরিবারের মধ্যে এক কোটি ৪১ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা এক লাখ ৫০ হাজার পরিবারের মধ্যে এক হাজার ৫০৮ টন চাল ও ৮৫ হাজার ২৯৪ পরিবারের মধ্যে ৭১ লাখ ৯৮ হাজার টাকা এবং মেহেরপুর ৬৩ হাজার ১১৭ পরিবারের মধ্যে ৮৫৮ টন চাল ও ১৮ হাজার ৩৮৬ পরিবারের মধ্যে ২৫ লাখ ৯৯ লাখ টাকা বিতরণ শেষ করেছে।
সম্প্রতি, বাগেরহাট জেলা প্রশাসনে এক লাখ ৪৫১ টন চাল ও ৬৫ লাখ ৯৫ হাজার টাকা, সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনে ৩৬৩ টন চাল ও ১৭ লাখ ১৫ হাজার টাকা এবং যশোর জেলা প্রশাসনে ২২১ টন চাল ও পাঁচ লাখ ১১ হাজার টাকা মজুত রয়েছে।
নড়াইল জেলা প্রশাসনে ২৮৪ টন চাল ও ছয় লাখ চার হাজার টাকা ও মাগুরা জেলা প্রশাসনে এক হাজার ৩২৪ টন চাল ও ৪৪ লাখ ১২ হাজার টাকা মজুত রয়েছে।
এছাড়া , ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনে ৪২৬ টন চাল ও ৩৪ লাখ ১৫ হাজার টাকা, কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসনে এক হাজার ৬০৭ টন চাল ও ৫০ লাখ ৮৪ হাজার টাকা, চুয়াডাঙ্গায় ৫৭৪ টন চাল ও ৩২ লাখ ৫১ হাজার টাকা এবং মেহেরপুরে এক হাজার ২৮২ টন চাল ও ৪৯ লাখ ৭৬ হাজার টাকা মজুত রয়েছে।