কাশ্মীর ইস্যুতে মোদির বৈঠককে পাকিস্তানের ‘ফ্লপ শো’ ঘোষণা!

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি রাজধানী ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে, কাশ্মীর নিয়ে মোদির সর্বদলীয় বৈঠককে ‘ফ্লপ শো’ বলে অভিহিত করেছেন। এছাড়াও এই বৈঠককে ‘আইওয়াশ’ বলে আখ্যায়িত করেছেন তিনি।

কাশ্মীরকে রাজ্যের মর্যাদা দেয়ার জন্য গত বৃহস্পতিবার মোদির প্রতিশ্রুতি দেন। তবে মোদির এই প্রতিশ্রুতি নিয়ে কুরেশি বলেন, ‘এটা ছিল আইওয়াশ। কেন এটা আইওয়াশ ছিল। সর্বোপরি একে জনসংযোগের মহড়া হিসেবে দেখা যেতে পারে।’

এতে আরও বলা হয়, ভারত দখলীকৃত জম্মু ও কাশ্মীরের ১৪ জন রাজনৈতিক নেতার সঙ্গে বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে বৈঠক করেন মোদি। তিনিই ওই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। ২০১৯ সালের ৫ই আগস্ট কাশ্মীরের স্বায়ত্তশাসন একতরফাভাবে বাতিল করার পর এটাই সেখানকার রাজনীতিকদের সঙ্গে প্রথম মুখোমুখি আলোচনা ছিল মোদির।

এতে অল পার্টিস হুরিয়াত কনফারেন্স (এপিএইচসি) নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেছেন, ওই বৈঠকের মধ্য দিয়ে নয়াদিল্লি স্বীকার করে নিয়েছে যে, ২০১৯ সালের ৫ই আগস্ট তারা যা করেছিল তার পাল্টা প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। কাশ্মীরের পূর্ণাঙ্গ স্বায়ত্তশাসন বা রাষ্ট্রের মর্যাদার জন্য যেসব কাশ্মীরি নেতা দাবি করেন তাদের সঙ্গে সর্বসম্মত মত প্রকাশ করেছেন পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

শাহ মেহমুদ কুরেশি বলেন, ‘ভারতের সুপ্রিম কোর্ট থেকে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করাকে যেসব কাশ্মীরি নেতা চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন, তাদের খুবই যৌক্তিক কারণ আছে। কাশ্মীরের আগের অবস্থা ফিরে পাওয়ার দাবি জানানো সত্ত্বেও কাশ্মীরি নেতারা শূন্য হাতে ফিরে এসেছেন। মোদি সরকার বলেছে, তারা শুধু এ বিষয়টি বিবেচনা করবে ডিলিমিটেশন এবং তথাকথিত নির্বাচনের পরে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মোদি যা বলেছেন, তা হলো যথাযথ সময়ে কাশ্মীরের আগের অবস্থা ফিরিয়ে দেয়া হবে। কিন্তু দীর্ঘদিনের যে সমস্যা তার উত্তর শুধু রাজ্য প্রতিষ্ঠার মধ্যে নেই। কুরেশি বলেন, কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার পর এসব হলো মিথ্যা প্রতিশ্রুতি।’