কাবুলে নারীদের বিক্ষোভ মিছিলে কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে নারীদের একটি বিক্ষোভ মিছিল ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে তালেবান। দেশটির টোলো নিউজ জানিয়েছে, তালেবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর নারীদের অধিকার সংরক্ষণের দাবি নিয়ে শনিবার দ্বিতীয় দিনের মতো রাজধানীর পথে নেমেছিল একদল সাংবাদিক ও নারী অধিকার আন্দোলন কর্মী।

নগরীর একটি সেতু থেকে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের দিকে মিছিল করে যাওয়ার চেষ্টাকালে তালেবান কর্মকর্তা ও নিরাপত্তা রক্ষীরা তাদের বাধা দেয়। এতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়।

গোষ্ঠীটি জানিয়েছেন, তালেবান তাদের লক্ষ্য করে কাঁদানে গ্যাস ও পেপার স্প্রে ছুড়েছে। পূর্বদিকের পুল-ই-মাহমুদ খান এলাকা থেকে মিছিলটি প্রেসিডেন্ট প্রাসাদের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টাকালে তাদের বাধা দেওয়া হয় এবং তালেবান স্পেশাল ফোর্স তাদের ওপর কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করে।

সুশীল সমাজ কর্মী সুরাইয়া টোলো নিউজকে বলেন, ‌‘আমাদের অধিকার রক্ষার জন্য আমরা একদল নারী মিছিলে যোগ দিয়ে প্রাসাদের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলাম, তখন তালেবান আমাদের ওপর হামলা করেছে, কাঁদানে গ্যাস ছুড়েছে এবং বেশ কয়েকজনকে পিটিয়েছে।’

‘২৫ বছর আগে যখন তালেবান কাবুল এসেছিল, তারা আমার স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল। তাদের পতনের পর গত ২০ বছর আমি পড়াশোনা করে উন্নত ভবিষ্যতের জন্য চেষ্টা করছি। এই অর্জন আমি হারাতে দিতে পারি না,’ বলেনি আজিতা, যিনি একজন সাংবাদিক।

‘আন্দোলনকারীরা প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সেদারাত প্রাসাদের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল, এগুলোর সবই সেইফ জোনে আর করোই ওই এলাকাগুলোতে প্রবেশের অনুমতি নেই। তালেবান তাদের থামাতে অনেকবার চেষ্টা করেছে, কিন্তু শেষ পর্যন্ত নারীদের প্রাসাদের দিকে যাওয়া বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে’, বলেছেন গণমাধ্যমকর্মী আবদুল হক ইমাদ।

তালেবান জানিয়েছে, প্রতিবাদকারীরা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ায় আর কোনো বিকল্প না থাকায় তাদের বিরুদ্ধে কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করেছে তারা।

সম্প্রতি কাবুল ও হেরাতে এ ধরনের বেশ কয়েকটি প্রতিবাদ দেখা যায় বলে বিবিসি জানিয়েছে। এই নারীরা তাদের কাজ করার অধিকার ও সরকারে তাদের অন্তর্ভুক্তির দাবি জানিয়েছেন। তালেবান জানিয়েছে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই তারা সরকার ঘোষণা করবে। সরকারে নারীরাও থাকতে পারবে বলে জানিয়েছেন তারা, কিন্তু মন্ত্রীর পদ পাবেন না।

সূত্র : বিবিসি