একদিনে রেকর্ড ৪০ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৫৪৫


৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে প্রথম দিনেই সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড হলো। রোগী শনাক্তের ১৩তম সপ্তাহে এসে করোনায় সর্বোচ্চ ৪০ জনের মৃত্যু ঘটেছে। এটিই এখন পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ মৃতের সংখ্যা। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৬৫০।

গত ২৪ ঘণ্টায় আরও দুই হাজার ৫৪৫ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এটিও এ পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ৪৭ হাজার ১৫৩ জন করোনা শনাক্ত হলেন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৪০৬ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ৭৮১ জন।
রবিবার (৩১ মে) বেলা আড়াইটায় কোভিড-১৯ সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনের আয়োজন করা হয়। সেখানে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।
তিনি জানান, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ এবং সাত জন নারী। অঞ্চল বিবেচনায় ঢাকা বিভাগে ২৮ জন, চট্টগ্রামে বিভাগে আট জন, খুলনায় দু’জন এবং রংপুর ও রাজশাহী বিভাগে একজন করে রয়েছেন।
বয়স বিবেচনায়, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে পাঁচ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১১ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে আট জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১১ জন এবং ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে চার জন রয়েছেন।
নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১২ হাজার ২২৯টি। পরীক্ষা করা হয়েছে ১১ হাজার ৮৭৬টি। এ নিয়ে মোট তিন লাখ আট হাজার ৯৩০টি নমুনা পরীক্ষা করা হলো।
তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২০ দশমিক ৭৪ শতাংশ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার এক দশমিক ৩৮ শতাংশ।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৩৯১ জনকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে, ছাড়া পেয়েছেন ১২৬ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন পাঁচ হাজার ৭৯৪ জন। এ পর্যন্ত ছাড়া পেয়েছেন তিন হাজার ১৬ জন।
তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয়েছে দুই হাজার ৯৪৭ জনকে, ছাড়া পেয়েছেন তিন হাজার ৪২ জন। এ পর্যন্ত মোট কোয়ারেন্টিনে নেওয়া হয়েছে দুই লাখ ৮৫ হাজার ১৭২ জন, আর ছাড়া পেয়েছেন দুই লাখ ২৪ হাজার ৯৯১ জন। বর্তমানে মোট কোয়ারেন্টিনে আছেন ৬০ হাজার ১৮১ জন।