আবদুল কাদেরকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদ মির্জা ফখরুলের, মুক্তি দাবি

২০ দলীয় জোট নেতা, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ও হেফাজতের নায়েবে আমির অধ্যাপক আহমদ আবদুল কাদেরকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। অবিলম্বে তাঁর মুক্তি দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব।

আজ রবিবার (২৫ এপ্রিল) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই উদ্বেগ প্রকাশ ও মুক্তি দাবি করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ‘বর্তমান অবৈধ সরকার নিজেদের অনৈতিক শাসনকে নিষ্কণ্টক ও দীর্ঘায়িত করার লক্ষ্যে বিরোধী দল এবং ভিন্নমত, স্বাধীন চিন্তাকে দমন করতে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে গ্রেপ্তার করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। এরই ধারাবহিকতায় ২০ দলীয় জোট নেতা, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ও দেশের বিশিষ্ট আলেম অধ্যাপক ড. আহমদ আবদুল কাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে’।

এ ছাড়া সারা দেশে বিরোধী দল বিশেষ করে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অসংখ্য নেতাকর্মীকে গত এক মাসে অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার ও মিথ্যা মামলায় হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি বলেন, ‘দেশ পরিচালনা ও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলায় সরকারের নিদারুণ ব্যর্থতায় জনজীবনে দুর্ভোগ যে নাভিশ্বাসে উঠেছে, তা থেকে জনদৃষ্টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে এবং আন্দোলন-সংগ্রাম দমন করতে সরকার এ ধরনের অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে’।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতি ও রমজানের মধ্যেও সরকারের নিষ্ঠুর আচরণ থেমে নেই। তাঁরা ফ্যাসিবাদী কায়দায় জনঅধিকার কেড়ে নিচ্ছেন এবং কল্পকাহিনী রচনা করে বিরোধী দলের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছেন। আজ তাঁরা প্রমাণ করেছেন যে, ন্যায় ও সত্য প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশে আর সঠিক তদন্ত কিংবা অনুসন্ধানের প্রয়োজন নেই, বরং বর্তমান সরকার ও আওয়ামী লীগের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থাকলেই সকল প্রকার দুর্নীতি-দুরাচার থেকে দায়মুক্তি পাওয়া যাবে’।

অবিলম্বে ২০ দলীয় জোট নেতা ও খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আহমদ আবদুল কাদের এবং বিএনপি, এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের গ্রেপ্তার নেতাকর্মীদের মুক্তি ও গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধের জোর দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব।